অতি অল্প আমলে জান্নাত যাওয়া সম্পর্কে গুরুত্বপুর্ণ হাদিস

আসুন আমরা একটু মনযোগী হয়ে অতি অল্প আমলে জান্নাত যাওয়া সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপুর্ণ হাদিস সম্পর্কে খেয়াল করে পড়ে নিই।

অল্প আমলে জান্নাত যাওয়া সম্পর্কে গুরুত্বপুর্ণ হাদিসসমূহ

বিসমিল্লাহ- ওয়াসসলাতু ওয়াসসালামু আ’লা রসুলিল্লাহ
​আনাস ইবনু মালিক (রাঃ) বলেন : ১ দিন আমরা রাসুল (সাঃ) এর কাছে বসেছিলাম, এমতাবস্থায় তিনি বললেন : এখন তোমাদের এখানে একজন জান্নাতি মানুষ প্রবেশ করবেন।তখন একজন আনসারি মানুষ প্রবেশ করলেন, যার দাঁড়ি থেকে ওযুর পানি পরছিল এবং তার বাম হাতে তার জুতাজুড়া ছিল।
পরের দিনও রাসুল (সাঃ) একই কথা বললেন এবং একই ব্যক্তি প্রবেশ করলো। তৃতীয় দিনেও রাসুল (সাঃ) প্রথম দিনের মতো আবারও বললেন এবং আবারও একই ব্যক্তি প্রবেশ করলো।
তৃতীয় দিনে রাসুল (সাঃ) মজলিস ভেঙ্গে চলে গেলে আব্দুল্লাহ ইবনু উমর উক্ত আনসারী ব্যক্তির পিছে পিছে যেয়ে বলেন, আমি আমার পিতার সাথে মন কষাকষি করেছি এবং ৩ রাত বাড়িতে যাব না বলে কসম করেছি। সম্ভব হলে এই কয় রাত আপনার কাছে থাকতে দিবেন কি? তিনি রাজি হন।
(আব্দুল্লাহর ইচ্ছা হলো ৩ রাত তার কাছে থেকে তার ব্যক্তিগত ইবাদত জেনে সেই মতো আমল করা, যেন তিনিও জান্নাতি হতে পারেন)।তিনি ৩ রাত তার সাথে থাকেন, কিন্তু তাকে রাত্রে উঠে তাহাজ্জুদ আদায় করতে বা বিশেষ কোন নফল ইবাদত পালন করতে দেখেন না। তবে ৩ দিনের মধ্যে তাকে শুধুমাত্র ভালো কথা ছাড়া কারো বিরুদ্ধে কোন খারাপ কথা বলতে শোনেননি।

আব্দুল্লাহ বলেন, আমার কাছে তার আমল খুবই নগণ্য মনে হতে লাগলো। আমি বললাম: দেখুন, আমার সাথে আমার পিতার কোন মনমালিন্য হয় নি। তবে আমি পরপর ৩ দিন রাসুল (সাঃ)-কে বলতে শুনলাম এখন ১ জন জান্নাতি মানুষ আসবেন এবং ৩ বারই আপনি আসলেন।এজন্য আমি আপনার আমল দেখে সেইমতো আমল করার উদ্দেশে আপনার কাছে ৩ রাত কাটিয়েছি, কিন্তু আমি আপনাকে বিশেষ কোন আমল করতে দেখলাম না! তাহলে কি কর্মের ফলে আপনাকে রাসুল (সাঃ) জান্নাতি বললেন?

তিনি বললেন, তুমি যা দেখেছ এর বেশি কোন আমল আমার নেই, তবে আমি আমার অন্তরের মধ্যে কোন মুসলমানের জন্য কোন অমঙ্গল ইচ্ছা রাখি না এবং আমি কোন কিছুর জন্য কাউকে হিংসা করি না। তখন আব্দুল্লাহ বলেন, এই কর্মের জন্যই আপনি এই মর্যাদায় পৌঁছাতে পেরেছেন। (মুসনাদে আহমাদ- হাদিস সহিহ)

Enter your text here...

Leave a Comment: